Home / সারাদেশ / লাশ উদ্ধার

লাশ উদ্ধার

চুনারুঘাট উপজেলার পৌর এলাকা বাল্লা রোড মাষ্টার হাউজ সংলগ্নে গলির ভেতরে বিলাস বহুল একটি ভাড়াটিয়া বাসায় পাওয়া যায় এক স্কুল ছাত্রের লাশ। লাশটি পুলিশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত ছাড়াই দাফন করতে হস্তান্তর করে পরিবারের কাছে। লাশটি উপজেলার ১০নং মিরাশি ইউনিয়নের জলিলপুর গ্রামের বাসিন্দা ও চুনারুঘাট হাজ্বী আলিম উল্লা মাদ্রাসার আরবি প্রভাষক আঃ সালামের পুত্র রেজাউল মোস্তফা তন্ময় (১৪) এর। তন্ময় চুনারুঘাট ডিসিপি হাই স্কুলের ৯ম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্র।
জানা যায়, ২৬ জুন মঙ্গলবার সন্ধায় মাইকিং করে তন্ময় নিখোঁজ হয়েছে বলে এলাকায় প্রচার করেন তার পরিবার। পরে রাত সাড়ে এগারোটায় বাল্লা রোডের মাস্টার হাউজের সম্মুখে গলির ভেতরে ২য় তলায় ভাড়াটিয়া বাসায় ঝুলন্ত অবস্থায় তন্ময়ের লাশ পাওয়া যায়।
লাশটি একনজর দেখতে ঘটনাস্থলে প্রচুর জনতা ভিড় জমায়। এদিকে খবর পেয়ে পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনা স্থলে পৌঁছে লাশটি উদ্ধার করলেও পারিবারিক তদবিরে ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরদিন সকালে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করে। পরে অভিভাবক লাশটি গ্রহণ করে হাজী আলী উল্লাহ মাদ্রাসার মাঠ প্রাঙ্গনে জানাযা নামাজ শেষে চুনারুঘাটে ১০ নং মিরাশী ইউনিয়নে জলিলপুর গ্রামে ২য় জানাযা শেষে লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করে। তন্ময়ের পিতা চাকুরীর সুবাদে বাল্লারোডে বসবাস করেন। পুলিশ বলছে আত্মহত্যা করেছে তন্ময় কিন্তু কেন আত্মহত্যা করেছে এ ব্যাপারে মুখ খুলছেন না কেহ। লাশের গায়ে আঘাত গুলো কিসের তা রহস্য হয়েই রয়েছে। ময়না তদন্ত ছাড়া লাশ দাফনকে কেন্দ্র করে জনমনে দিয়েছে নানান প্রশ্নের দেখা।
এদিকে তন্ময়ের পরিবারের সাথে বারবার কথা বলতে চাইলে কোনো উত্তর পাওয়া যাচ্ছে না। স্থানীয় সূত্র বলছে, তন্ময় খুবই ভাল, নম্র- ভদ্র হাসোজ্বল ছিলো।
সূত্র আরো বলছে , গলির ২য় তলার যে রুম থেকে তার লাশ উদ্ধার হয় সে রুমের দরজা জানালা বা আশেপাশে কোন আলামত চোখে পড়েনি, কাঠের উপর রঙের ড্রাম ছিলো। ড্রামের পাশে ছিলো ঝুলন্ত লাশ। ছাদের রডের সাথে রশি দ্বারা গলায় বাঁধা ছিলো। মুখমন্ডল কাপড় দ্বারা মোড়ানো ছিলো। লাশটি অর্ধনগ্ন ছিলো। জনতার ভিড়ে চুনারুঘাট থানার ওসি (তদন্ত) সহ অন্যান্য পুলিশের উপস্থিতিতে লাশটির রশ্মি কেটে যখন বিছানায় রাখা হয় তখন তার পা বাঁধা, হাফ প্যান্ট খোলা এবং পা হালকা রক্তাক্ত দেখা গেছে।
তার মৃত দেহের ছবিতেও তাই দেখা যায়। এটা আত্মহত্যা না হত্যা এ নিয়ে জনমনে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক চাঞ্চল্য নানান কথা ও ধুম্রজালের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন প্রতিক্রিয়া ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা বলেন, তন্ময়ের পরিবারের কোন অভিযোগ নেই। তবু বিষয়টি খতিয়ে দেখবে পুলিশ।

চুনারুঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি আলী আশরাফ বলেন, এবিষয়ে কোন অভিযোগ নেই তবে অভিযোগ হলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

তিনি আরও বলেন, পিতার অাবেদনের প্রেক্ষিতে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এর অনুমোদন ক্রমে আমরা বিনা ময়নাতদন্তে লাশটি হস্তান্তর করা হয়েছে।
এটি আত্মহত্যা না হত্যা বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য এলাকাবাসী প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন।

Check Also

লক্ষ্মীপুরে আলতাফ মাষ্টার ঘাটে ভোক্তা অধিকারের অভিযান

সোহেল হোসেন লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরে রায়পুর উপজেলার ২নং উত্তর চরবংশী ইউনিয়নের আলতাফ মাষ্টার ঘাটের …

Leave a Reply