Breaking News
Home / সাহিত্য / আমারবাংলা ভার্চুয়াল সংখ্যা -২০২০ / দেওয়ান ইকবাল‘র দুটি কবিতা

দেওয়ান ইকবাল‘র দুটি কবিতা

 

বানে ভাসা লজ্জা

কি যে কষ্ট বাহে দুই দিন রান্না হইনি ঘর খানি ভাসি গেছে বানের জলে পুলাপান গুনার মুখের দিকে চাইবার পারি না বউডা আঁচলে মুখ লুকায়রে বাহে কিছু কইবার পারে না। মুই কি কখনো ভাবিছিনু হামার ঘরে রান্না হবেক লাই? কতজন কতকিছু দিয়ে গেল আমি তো মুখ লুকাই বড় গাছটার কোণে লজ্জা লাগে ক্যামনে খারাই লাইনে তুলে আনি খাবার গামছার তলে লুকিয়ে আছে সম্মান। খিদা? হায়রে খিদা? তুই আইজ হামারে লাইনে খারা করলি। হামারে নিয়া ফটো তুলে সাড়া জগতের লোক দ্যেহে আইজ আমি খালি গায়ে লুঙ্গি পড়ে লাইনে খাঁড়ায়ে পেটের জালা মিটাই। কান্না বুকের ভিতর পিষে, মাটি চাঁপা দিয়া লজ্জারে, নিয়তিরে মাইনা নিলাম। নেও বাহে ফটো তোল- রিলিফ আনো আর জগত ভইরা প্রচার করো। আমরা রিলিফের মাল খাই।

সাদা পাঞ্জাবি

সবুজের বুকে আজও চিহ্নিত সেই কণ্ঠস্বর সেই বজ্রপাতের ধ্বনি সেই বজ্র কণ্ঠের প্রতিধ্বনি আজও বাংলার আকাশে বাতাসে ভাসে । ঝাটকা টানে শিকল ভাঙ্গার শক্তির মসনদ থেকে শিরা উপশিরায় টগবগ করে রক্ত সঞ্চাললের খরস্রোতা নদীর প্রবাহ- ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম এবারে সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম” স্বপ্ন দ্রষ্টার বাংলা সেজেছিল কত আশা কত ভরসায় তারপর কোন প্রাতে কালক্ষণ হয়েছিল ভোরের সূর্যোদয় একাকী জীবন প্রাতে কালের গর্ভে হানা দিয়েছিল বর্ণচোরা- মুহু মুহু শব্দে হেসেছিল স্বপ্ন ভঙ্গের পরমাত্মার প্রেতাত্মারা- দুর্নিবার অংশ গ্রহনে মাতালের প্রতিযোগিতা ছিল অবিনশ্বর, দূর্বা ঘাসে বিন্দু বিন্দু শিশির কনা গুলো সূর্যকে করেছিল প্রত্যাখ্যান স্বপ্ন ভঙ্গের দেবতারা সেদিন কুলংগারের মত করেছিল নৃত্য- অবয়ব ঢেলে সাজিয়েছিল ধবধবে সাদা পাঙ্গাবিটাকে রক্তের বাংলায় তাই বলে কি হেরে যাবে বাংলা হেরে যাবে সেই সংকল্প ? রক্তের সেই বিন্দু গুলো কেঁদে কেঁদে বলছে আমার সাদা পাঞ্জাবীর দাগেও যেন সোনার বাংলা হয়।

Check Also

ভালুকায় কবিতা আড্ডা ও নতুন বইয়ের পাঠ উন্মোচন

  ভালুকা(ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ভালুকায় কলম কবিতা আড্ডা ও নতুন বইয়ের পাঠ উন্মোচন অনুষ্ঠিত। …