Home / সারাবাংলা / ‘কৃষক’- এর প্রচলিত সংজ্ঞা ভেঙ্গে দেয়ার চেষ্টা করেছিঃ শাইখ সিরাজ

‘কৃষক’- এর প্রচলিত সংজ্ঞা ভেঙ্গে দেয়ার চেষ্টা করেছিঃ শাইখ সিরাজ

 

ড্যাফোডিল জার্নালিজম এন্ড ম্যাস কমিউনিকেশন বিভাগ-এর ওয়েবিনার

 

ঢাকা:- দেশের কৃষিখাতের উন্নয়নে গণমাধ্যমের কাজ করার অনেক সুযোগ রয়েছে, কিন্তু সে সুযোগ যথেষ্ট কাজে লাগানো হচ্ছেনা বলে মনে করেন গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও চ্যানেল আই-এর পরচিলক শাইখ সিরাজ।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির জার্নালিজম এন্ড ম্যাস কমিউনিকেশন (জেএমসি) বিভাগ আয়োজিত আজ ( সোমবার) অনলাইন বক্তৃতায় তিনি বলেন, “কৃষি সাংবাদিকতা করার ক্ষেত্রে কোন প্রতিবন্ধকতা নাই। তবে এ খাতে কাজ করতে যা দরকার, তা-হল আগ্রহ ও আন্তরিকতা। কৃষির উন্নয়নে গণমাধ্যমের কাজ করার অনেক সুযোগ থাকলেও তা যথেষ্টভাবে কাজে লাগানো হচ্ছেনা। ”

“বাংলাদেশে উন্নয়ন সাংবাদিকতাঃ সম্ভাবনা এবং চ্যালেঞ্জ” শীর্ষক এ বক্তৃতায় জেএমসি’র শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সাবেক প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক ডঃ গোলাম রহমান বিশেষ অতিথি হিসেবে আলোচনায় অংশ নেন। জেএমসি’র বিভাগীয় প্রধান ডঃ;শেখ শফিউল ইসলাম শুভেচ্ছা বক্তব্য প্রদান করেন।

কৃষি সাংবাদিকতার মাধমে টেলিভিশনকে কৃষকের দোরগোরাই নিয়ে যাওয়া “হৃদয়ে মাটি ও মানুষ” খ্যাত শাইখ সিরাজ তাঁর দীর্ঘ অভিজ্ঞতা থেকে গল্প শুনিয়ে সাংবাদিকতার নবীণ শিক্ষার্থীদের সামনে দেশে কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতার সম্ভাবনার চিত্র তুলে ধরেন।

বাংলাদেশে কৃষি পেশা নিয়ে প্রচলিত ধারনা ভেঙ্গে দেয়ার প্রসঙ্গে বলেন, “আমি যখন কাজ শুরু করি, তখন কৃষক বলতে আলাদা একটা শ্রেণিকে বোঝানো হত। আমি সে ধারনাকে ভেঙ্গে দেয়ার চেষ্টা করেছি। কৃষি কাজ শিক্ষিত-অশিক্ষিত যে-কেউ করতে পারেন।”

তিনি বলেন, “আজ শহরের অনেক শিক্ষিত নারীও কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন। শহুরে বাসার বারান্দা বা ছাদে তাঁরা ফসল ফলাচ্ছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরাও আজ মাঠে ছুটে যাচ্ছেন। তাঁরা বিভিন্ন আধুনিক কৃষি প্রকল্পের পরিকল্পনা নিয়ে আসছেন।”

“এছাড়া, দেশের কৃষিফসল বলতে ছিল শুধু ধান আর পাট। এখান থেকেও বের করে নিয়ে আসার চেষ্টা ছিল। মোটকথা কৃষিফসলে বৈচিত্র নিয়ে আনাই ছিল আমার লক্ষ। এখন দেশের মাটিতে স্ট্রবেরি, আপেলকুলসহ বহুধরনের ফুল ও ফলেরও চাষ হচ্ছে।”

শাইখ সিরাজ বলেন, দেশের অর্থনীতিতে কৃষিখাত এখনও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে এবং বেকারত্ব হ্রাসে অবদান রাখতে পারে।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, কৃষি সাংবাদিকতা করতে হলে গতানুগতিক সাংবাদিকতা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। কৃষকের সাথে মিশে গিয়ে বিষয়ের গভীরে গিয়ে কাজ করতে হবে। ভাষা ও সংস্ক্তিগত প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হবে। এছাড়া দেশের উন্নয়নের সাথে সংশ্লিষ্ট যেকোনো খাত উন্নয়ন সাংবাদিকতার বিষয় বলে উল্লেখ করেন। উদাহরন হিসেবে মহামারীর এ সময়ে স্বাস্থ্যখাত উন্নয়ন সাংবাদিকতার গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হতে পারে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অধ্যাপক ডঃ গোলাম রহমান বলেন, শাইখ সিরাজের অনুষ্ঠান “হ্রদয়ে মাটি ও মানুষ” কৃষির আধুনিকায়ন, কৃষির সাথে সংশ্লিষ্ট বিপণন ব্যবস্থার উন্নয়ন, মধ্যসত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য রোধ এবং সামগ্রিকভাবে একটি কৃষিভিত্তিক সংস্কৃতি চালু করায় অসামান্য অবদান রেখেছে, যা খাত করে দেখার কোন সুযোগ নেই।

ডিআইইউ ফ্যাকাল্টি অব হিউম্যানিটিজ এন্ড সোশ্যাল সাইন্স- এর ডিন অধ্যাপক হামিদুর রহমানও বক্তব্য রাখেন।

ডঃ;শেখ শফিউল ইসলাম কৃষি সাংবাদিকতা ও শাইখ সিরাজের “হৃদয়ে মাটি ও মানুষ” নিয়ে পিএইচডি গবেষণা করেন। তিনি তাঁর বক্তব্যে দেশের কৃষি সাংবাদিকতায় শাইখ সিরাজের অবদানের কথা তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠান সঞ্ছালনায় ছিলেন জেএমসি’র শিক্ষক রাশেদুল ইসলাম রাতুল। তিনি শুরুতে কৃষি ও উন্নয়ন সাংবাদিকতার উপর খোলা একটি কোর্সের কন্টেন্ট সবার উদ্দেশে তুলে ধরেন। কোর্সটি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অনলাইন শিক্ষা প্লাটফরম বিএলসিতে ডিজাইন করা হয়েছে। প্রশ্নোত্তর পর্বের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

 

প্রেস রিলিজ
তারিখঃ ১০ আগস্ট, ২০২০

Check Also

নওগাঁয় গাঁজা ও ইজিবাইকসহ ২জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

  ব্রেলভীর চৌধুরী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব-৫) জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল …