Breaking News
Home / সাহিত্য / আমারবাংলা ভার্চুয়াল সংখ্যা -২০২০ / মিতা চট্টোপাধ্যায়’র কবিতা

মিতা চট্টোপাধ্যায়’র কবিতা

বসন্ত কোকিল

মৃত্যু নিয়ে বিচলিত অথবা বিভ্রান্ত নাহলেও চলে
মৃত্যু নিয়ে কাব্য! হয় বইকি, তবে আনন্দ সেখানে মামুলি কয়লা খনির শ্রমিক।
মৃত্যু নিঃস্পৃহ ঠিক আমারই মতো
তোমার ইচ্ছে অনিচ্ছের গ্রন্থীগুলোকে পাত্তা না দিয়েই
আমি যেমন চুপিসারে তোমার সামনে দাঁড়াই, বাধ্য করি
আমার সঙ্গে যেতে। ভালবাসতে শেখাই জীবনকে
নিজে অচ্ছুৎ হয়ে। মৃত্যু জীবনের বসন্ত কোকিল
মৃত্যু শিল্পের মতো, ব্যক্তিগত নয়।
আমি হাত বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে আছি রাঙা মাটির পথে
তোমার নিঃস্ব জীবন, দামাল শিশুর মতো বেড়ে ওঠে আমারই আদরে প্রশ্রয়ে।

সুরক্ষা বলয়
বিষাদের মাঝে যে পুর্ণতা, তৃপ্ততা থাকে
অনায়াসে তাকে বিলাসি মনের ভ্রান্তিবিলাস
বলতেই পারো। এতো শুধু তুলাদন্ডের মাপজোক নয়
এদিক সেদিক হলেই ক্রেতা সুরক্ষা আইনের কলে
হাঁসফাঁস করবে। কতশত সময়ের বিন্দু বিন্দু সিন্ধু মিশে আছে
বিষাদ সাগরে। এক অবেলা গোধূলী মাঝে যে সন্ধ্যা মিশে থাকে
খরস্রোত রোদের উঠোনে তার সন্ধান পাবে কি?
ভালোবাসার সহস্র ঘূর্ণাবর্তে হারিয়ে যায় ফেলে আসা কিছু কথা
যা কোনদিন কোন পূর্বরাগের খেয়ালী দম্ভে মনে পড়েনি।
কোন অখ্যাত স্থানে কাদামাটি মাখা ঘোলাজলে কত কথা
জেগে ওঠে বিষাদ সূর্যোদয়ে। তোমারই অজান্তে তীর ছুঁয়ে ঘিরে রাখে
তোমার সুরক্ষা প্রাচীর লবণাক্ত ম্যানগ্রোভ হয়ে।

Check Also

এরশাদ আহমেদ’র ছড়া- সূর্যি উঠা