Home / সারাবাংলা / ঐতিহাসিক ইমাম বাড়ি অবহেলায় ধ্বংসের পথে

ঐতিহাসিক ইমাম বাড়ি অবহেলায় ধ্বংসের পথে

অনলাইন ডেস্ক- চলনবিলের এক প্রাচীন জনপদের নাম তাড়াশ উপজেলা। সম্রাট জাহাঙ্গীর সরেজমিনে বাংলা পরিদর্শনে আসেন। এ সময় তিনি তাড়াশের জমিদার সমৃদ্ধ বারুহাস গ্রামের শাহ ইমাম (রহ)-এর সাথে সাক্ষাৎ করেন। শাহ ইমামকে সম্রাট জাহাঙ্গীর বারুহাস গ্রামে কয়েকটি পাকাঘর এবং একটি পুকুর খনন করে দিয়েছিলেন। যা ইমাম বাড়ি নামে পরিচিত।

এতিহাসিক ইমাম বাড়িটি জরাজীর্ণ ও বিলুপ্তপ্রায়। ইমাম বাড়িতে দুটি ক্ষুদ্র ভবনের ধ্বংসাবশেষ এখনও বিদ্যমান। ভবন দুটিতে একটি করে কিলানযুক্ত প্রবেশ পথ রয়েছে। প্রবেশ পথের দুই পাশের দেয়ালে নকশায় ছবি অংকৃত ছিল। কালের বিবর্তনে নকশাগুলো বিলুপ্তির পথে। তবে এখনও প্রবেশ পথের উপরে এবং দুই পাশে ফুল-লতাপাতার নকশা টিকে আছে। এর অভ্যন্তরে পূর্ব দিকে প্রবেশ পথ। প্রবেশ পথের উভয় পাশেই নকশা বিদ্যমান। দীর্ঘ দিন হওয়ার কারণে প্রাচীরের আস্তর খসে পড়ছে।
স্থানীয়রা জানায়, মুসলিম শিয়া সম্প্রদায় এ দেশে কারবালার নিষ্ঠুর ঘটনার স্মৃতি অটুট রাখার উদ্দেশে বিভিন্ন স্থানে ইমাম বাড়ি নির্মাণ করে ছিলেন। চারশ বছরের অধিক প্রাচীন এ ইমাম বাড়ি রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে এখন ধ্বংসের দারপ্রান্তে। ইমাম বাড়িটি সংস্কার করে প্রত্নতত্ত্ব নির্দশনের অন্তর্ভুক্ত করে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা দরকার বলে মনে করেন সচেতন মহল।

Check Also

লক্ষ্মীপুর রামগতিতে শিক্ষার্থী আছে নেই বিদ্যালয়

সোহেল হোসেন লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চরবালুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি মেঘনা নদীর …