Home / সারাবাংলা / ভালুকায় ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম থানায় মামলা, ইউপি চেয়াম্যানসহ আটক ৩

ভালুকায় ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম থানায় মামলা, ইউপি চেয়াম্যানসহ আটক ৩

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ২নং মেদুয়ারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কর্তৃক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের (ডিডিএম) বরাদ্দকৃত অতিদরিদ্রদের জন্য বরাদ্দকৃত ২০৬ বস্তা (৬টন১৮০ কেজি) ভিজিএফের চাল কেলেĽারির ও আতśসাতের ঘটনায় চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার রাণী, চৌকিদার আকবর আলী ও চাউল ব্যবসায়ী নুরু ডিলারকে গ্রেপ্তার করেছে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে ভালুকা মডেল থানায় মামলা নং- ৩৭ দায়ের করলে তাদেরকে গ্রেফতার দেখানো হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন।
এর আগে সংশ্লিষ্ট ট্যাগ অফিসার ও ইউপি চেয়ারম্যানসহ কতিপয় ব্যক্তির অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মের কারণে অনেকেই চাল না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। এরই জের হিসেবে বুধবার দুপুরে উপজেলা নিবাহী অফিসার ও উপজেলা চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে ছুটে যান। পরে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার রানী, আকবর হোসেন নামে এক দফাদারকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়।
পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আকবর হোসেন জানান, ২০৬ (৬টন১৮০ কেজি) বস্তা চাল সে ভালুকা বাজারের খাদ্য ব্যবসায়ী নূর হোসেন ওরফে নুরু ডিলারের কাছে বিক্রি করা হয়।
জানা যায়, চাউল বিতরণের তৃতীয়দিন বুধবার বিকেলে উপজেলার ২ নম্বর মেদুয়ারী ইউনিয়ন পরিষদে বিতরণ কার্যক্রমের সময় চাল নিতে আসা প্রায় ৩০০ কার্ডধারী চাউল না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশসহ হৈ হোল্লোড় শুরু করেন। ওই ইউনিয়নে ৪ হাজার ৮৩ জন কার্ডধারীকে ১০ কেজি করে চাউল দেয়ার কথা, কিন্তু প্রয় ৩০০ কার্ডধারী চাল না পেয়ে খালি হাতেই ফিরে যেতে হয়েছে। ভূক্তভোগীদের অভিযোগ, এনিয়ে মেদুয়ারী ইউনিয়নে একাধিকবার চাউল বিতরণে অনিয়মের ঘটনা ঘটলেও বার বার পার পেয়ে যায় দুনীতিবাজরা।
ইউপি প্যানেল চেয়ারম্যান ও সদস্যদের অভিযোগ, তাদের না জানিয়ে চেয়ারম্যান নিজেই ট্যাগ অফিসারের সাথে যোগসাজশ করে চাউল উত্তোলনসহ বিতরণ করেছেন। এতে করে অনেকেই চাল না পেয়ে আমাদের কাছে অভিযোগ নিয়ে এসেছেন ।
ইউপি চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার রাণী বলেন, এই বিষয়ে আমার কোন ধারনা নেই। তবে ৭৫ জনকে চাউল দিতে পারিনি।
তদারকি অফিসারি (ট্যাগ অফিসার) উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জুয়েল আশরাফ জানান, বিতরণের এক পর্যায়ে চাউল শেষ হয়ে যাওয়ায় প্রায় ৩০০ কার্ডধারীকে চাউল দেয়া সম্ভব হয়নি।
পরে খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ।
ভালুকা মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ মাইনউদ্দিন জানান, ভিজিএফ এর ২০৬ বস্তা চাল পাওয়া না যাওয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার রানী, আকবর হোসেন ও চাউল ব্যবসায়ী নুরু ডিলার নামে এক দফাদারকে আসামী করে মামলা হয়েছে। তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানান, আমি খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনস্থল পরিদর্শন করেছি, তদন্ত সাপেক্ষে যদি সত্যতা প্রমানিত হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ কামাল বলেন, তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে, অবশ্যই অপরাধ প্রমানিত হলে শাস্তি অনিবার্য্য। মডেল থানা পুলিশ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য ইউপি চেয়াম্যান জেসমিন নাহার রানী, আকবর হোসেন ও চাউল ব্যবসায়ী নুরু ডিলারকে থানায় নিয়ে আসে।

Check Also

নওগাঁয় গাঁজা ও ইজিবাইকসহ ২জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

  ব্রেলভীর চৌধুরী, নওগাঁ জেলা প্রতিনিধিঃ র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব-৫) জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল …